এপ্রিল ১৪, ২০২৪

বিজ রিপোর্ট

স্বর্ণের দাম আরও কমছে। এক মাসের ব্যবধানে দেশের বাজারে এবার প্রতি ভরি সবচেয়ে ভালো মানের স্বর্ণের দর এক হাজার ১৬৬ টাকা কমানো হয়েছে; নেমে এসেছে ৮০ হাজার ১৩২ টাকায়। এতো দিন বিক্রি হয়েছে ৮১ হাজার ২৯৮ টাকা।

মঙ্গলবার (২৫ অক্টোবর) থেকে এই নতুন দর কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি-বাজুস।

এ নিয়ে দেড় মাসের ব্যবধানে চার দফায় ভরিতে ৪ হাজার ৪৩২ টাকা কমল মূল্যবান এই ধাতুর দাম।

অন্যান্য মানের স্বর্ণের দামও প্রায় একই হারে কমানো হয়েছে বলে জানিয়েছে বাজুস।

সোমবার রাতে বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান এম এ হান্নান আজাদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বর্ণের দাম কমানোর ঘোষণা দেয়া হয়।

তাতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পিওর গোল্ড) দাম কমেছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এনে দেশের বাজারে স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করা হ‌য়ে‌ছে।

নতুন দর অনুযায়ী, মঙ্গলবার থেকে সবচেয়ে ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে ৮০ হাজার ১৩২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম কমে ৭৬ হাজার ৫১৬ টাকা করা হয়েছে। ১৮ ক্যারেটের দাম কমে হয়েছে হয়েছে ৬৫ হাজার ১৫২ টাকা। এ ছাড়া সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৩ হাজার ৮৮৮ টাকা।

সোমবার পর্যন্ত ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণ ৮১ হাজার ২৯৯ টাকায় বিক্রি হয়েছে। ২১ ক্যারেটের ভরি বিক্রি হয়েছে ৭৭ হাজার ৬২৪ টাকায়। ১৮ ক্যারেটের দাম ছিল ৬৬ হাজার ৪৮৫ টাকা।

এছাড়া গত এক মাস সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণ বিক্রি হয়েছে করা হয়েছে ৫৫ হাজার ১৭১ টাকায়।

এর আগে সবশেষ গত ২৬ সেপ্টেম্বর স্বর্ণের দাম কমানো হয়। ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে তা কার্যকর হয়। তার আগে ১৮ সেপ্টেম্বর কমানো হয়। ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে তা কার্যকর হয়। তার চার দিন আগে ১৪ সেপ্টেম্বর আরেক দফা কমানোর ঘোষণা দেয় বাজুস। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে তা কার্যকর হয়।

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ায় এবং স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পিওর গোল্ড) তেজিভাবে কারণে দেড় মাস আগে ১০ সেপ্টেম্বর অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে সবচেয়ে ভালো মানের স্বর্ণের ভরি ৮৫ হাজার ৫৬৪ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছিল বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি-বাজুস। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনই দেশের বাজারে মূল্যবান এই ধাতুটি এত দামে বিক্রি হয়নি।

আন্তর্জাতিক বাজারে কয়েক মাস ধরে স্বর্ণের দামে নিম্নমুখী প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স (৩১.১০৩৪৭৬৮ গ্রাম) স্বর্ণেরদাম ছিল প্রায় ১ হাজার ৮০০ আমেরিকান ডলার। কিন্তু রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হলে দাম হঠাৎ বেড়ে যায়। মার্চের প্রথম সপ্তাহে দাম বেড়ে হয় ২ হাজার ৫২ ডলারে উঠে; যা ছিল ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। এরপর কয়েক মাস ধরে দাম কমছে।

সোমবার রাত ৮টার দিকে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ছিল ১ হাজার ৬৫১ ডলার।

তবে রুপার দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *