জুলাই ২৪, ২০২৪

পুঁজিবাজারে চেকের টাকা নগদায়নের আগে তা দিয়ে শেয়ার কেনা যাবে না বলে গত ১১ অক্টোবর স্টক ব্রোকারদের প্রতি বিএসইসি এক নির্দেশনা জারি করে। এরপর থেকেই পুঁজিবাজারে লেনদেন কমে যেতে থাকে। এমন পরিস্থিতিতে সেই নির্দেশনা পাল্টে চার শর্তে চেকের মাধ্যমে শেয়ার কিনার নতুন নির্দেশনা জারি করা হলো। এতে ব্রোকারেজ হাউজকে সেদিন বা পরের কর্মদিবসে চেক ব্যাংকে জমা দেয়াসহ চারটি শর্ত আরোপ করা হয়েছে।মঙ্গলবার বিএসইসি চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় এই এই সুযোগ দেয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের উন্নয়নে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ‘এখন থেকে ব্রোকারেজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংক গুলো বিনিয়োগকারীদের থেকে চেক, পে অর্ডার ডিমান্ড ড্রাফট বাংলাদেশ ব্যাংক অনুমোদিত অন্য কোনো মাধ্যমে টাকা পেলে সেই টাকা নগদ করার আগে লেনদেন করতে পারবে।’

ব্রোকারেজ হাউজের জন্য বিএসইসির নির্দেশনায় চার শর্ত ও দুটি করণীয়ের কথা বলা আছে। প্রথমত. বিনিয়োগকারীর জমা দেয়া চেক যদি ব্রোকারেজ হাউজ বা মার্চেন্ট ব্যাংক সেদিন বা পরের কর্মদিবসে ব্যাংকে জমা না দেয়, তাহলে পরের এক বছরের জন্য আইপিওতে যোগ্য বিনিয়োগকারীর সুযোগ সুবিধা হারাবে তারা। দ্বিতীয়ত. সেই চেক যদি বাউন্স করে, অর্থাৎ ব্যাংক হিসাবে যদি সমপরিমাণ টাকা পাওয়া না যায়, তখন ব্রোকারেজ বা মার্চেন্ট ব্যাংকের হিসাব থেকে সে টাকা দিতে হবে। সেটিও যদি না হয়, তাহলে সেই প্রতিষ্ঠান আইপিওতে এক বছরের জন্য সব সুবিধা হারাবে।

তৃতীয়ত. যে গ্রাহকের চেক বাউন্স করবে, তিনি পরের এক বছর পুঁজিবাজারে আর লেনদেন করতে পারবেন না। চতুর্থত. প্রতিটি স্টক ব্রোকারকে ডিসঅনার চেকের তালিকা মাস শেষ হওয়ার ১০ দিনের মধ্যে বিএসইসিকে পাঠাতে হবে।

ব্রোকারেজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংকের করণীয় হিসেবে যেগুলো উল্লেখ করা হয়েছে সেগুলো হলো, ১. গ্রাহককে অনলাইনে টানা স্থানান্তরে উৎসাহ দেবে প্রতিষ্ঠানগুলো এবং ২. এই শর্ত ও করণীয়গুলো বাস্তবায়ন করতে ঢাকা ও চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জ এবং মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজগুলো দ্রুত ব্যবস্থা নেবে।

এর আগে চেকের বিষয়ে স্টক ব্রোকারদের সংগঠন ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ বা ডিবিএর পক্ষ থেকে ডিএসই ও নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিকে চিঠি দিয়ে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে যে, চেক নিয়ে নির্দেশনা না পাল্টালে পুঁজিবাজারে চাপ আরও বাড়বে।১৭ অক্টোবর এই চিঠির বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে সত্যি সত্যি চাপের বিষয়টি দেখা যায় পরদিন থেকেই। কোম্পানিগুলোর শেয়ার দর হারানোর পাশাপাশি লেনদেন কমতে কমতে এখন আট শ কোটির ঘরে নেমেছে, যা এক মাস আগেও দুই হাজার কোটি টাকার ঘরে ছিল।

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *