ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪

করোনা মহামারির দীর্ঘ ধাক্কার পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্বের অনেক দেশের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিও বেশ চাপে পড়েছে। আর চাপ সামলাতে সরকার আইএমএফের কাছে সাড়ে ৪ বিলিয়ন (৪৫০ কোটি) ডলার ঋণ চেয়েছে। সেই সাড়ে ৪ বিলিয়ন ডলার ঋণ দিতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) যেসব শর্ত দিচ্ছে সেগুলোর কোনোটিই নতুন নয়। সংস্থাটির বিভিন্ন সময়ে দেয়া পরামর্শগুলো এখন ঋণ দিতে শর্ত হিসেবে দেয়া হচ্ছে, যা আসলে দেশের অর্থনীতির ভিত মজবুতের একটি অংশ।

বিশ্ব আর্থিক খাতের এ সংস্থাটি বাংলাদেশের অর্থনীতির ভিত মজবুত করতে বিভিন্ন সময়ে ব্যাংকিং খাতের প্রধান সমস্যা খেলাপি ঋণের হার হ্রাস, বাংলাদেশ ব্যাংককে পূর্ণ স্বায়ত্তশাসন প্রদান, বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভের হিসাব পদ্ধতি আন্তর্জাতিক মানের করা, বিদেশি মুদ্রার বিনিময় হার বাজারের ওপর ছেড়ে দেয়া, আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে জ্বালানি তেলের দাম সমন্বয়, রাজস্ব আদায় বাড়াতে রাজস্ব খাতের ব্যাপক সংস্কার সহ নানা পরামর্শ দিয়ে আসছে সংস্থাটি।এদিকে বাংলাদেশের প্রয়োজন বিবেচনায় নিয়ে আইএমএফ ঋণ দিতে প্রাথমিকভাবে রাজিও হয়েছে। তবে সেই সুযোগে পুরোনো পরামর্শগুলোকেই এখন ‘শর্ত’ হিসেবে সরকারকে বাস্তবায়ন করতে বলছে।

’আইএমএফের এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান রাহুল আনন্দের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল গত ২৬ অক্টোবর ঢাকায় এসেছে। প্রতিনিধিদল অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠক করবে। এরই মধ্যে অর্থ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক ও এনবিআরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে একাধিক বৈঠক হয়েছে। ধারাবাহিক বৈঠকের অংশ হিসেবে গতকাল সোমবারও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। ঢাকায় এসেই তারা অর্থসচিব ফাতিমা ইয়াসমিনসহ অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রথম বৈঠক করেন। পরের দিন বৈঠক হয় গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারসহ বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সঙ্গে।ধারাবাহিক বৈঠকের অংশ হিসেবে রোববার আবারও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তারা। বৈঠকে ব্যাংকিং খাতের বিশাল অঙ্কের খেলাপি ঋণ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এই খেলাপি ঋণ কমাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নেয়া পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন আইএমএফ প্রতিনিধিদলের সদস্যরা।

ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কি না সে বিষয়েও জানতে চেয়েছেন তারা। খেলাপি ঋণ ছাড়াও বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের হিসাবায়ন পদ্ধতিতে পরিবর্তন, বাংলাদেশ ব্যাংকের স্বায়ত্তশাসন, মুদ্রানীতি, বৈদেশিক বাণিজ্য ঘাটতি, ঋণের সুদ ও মুদ্রার বিনিময় হার, সঞ্চয়পত্রের সুদহার, বন্ড ব্যবস্থাপনাসহ বেশ কিছু বিষয়ে আলোচনা হয়। আইএমএফের বিভিন্ন প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ব্যাংক নিজেদের অবস্থান তুলে ধরেছে বলে জানা গেছে।কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, জুন শেষে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ সোয়া লাখ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা মোট ঋণের প্রায় ৯ শতাংশ। আইএমএফ দীর্ঘদিন ধরে এই হার ৩ শতাংশে নামিয়ে আনার পরামর্শ দিয়ে আসছে। ঋণের শর্ত হিসেবে নতুন করে এ বিষয়টি জোরালোভাবে উপস্থাপন করেছে আইএমএফ। এ ছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স্বায়ত্তশাসনের বিষয়টিও বেশ জোরেশোরে তুলে ধরা হয়েছে বলে জানা গেছে।তবে কোনো বৈঠক শেষেই আইএমএফের কোনো প্রতিনিধি সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। সংস্থাটির পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত বৈঠকের বিষয়ে কোনো বিবৃতিও দেয়া হয়নি।

সূত্র জানায়, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে বৈঠকে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হয়েছে রিজার্ভের প্রকৃত হিসাব নিয়ে। আইএমএফ বলছে, ভুল শ্রেণীকরণের কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভের আকার বড় হয়েছে বলে দাবি করে আইএমএফ। ২০২১ সালে আইএমএফ বলেছিল, চলতি বছরের জুনের শেষ দিকে বাংলাদেশে ৪৬ বিলিয়ন ডলারের রিজার্ভ থাকার যে কথা বলা হয়েছিল, তা আসলে ১৫ শতাংশ বাড়িয়ে বলা হয়েছে। রিজার্ভবহির্ভূত সম্পদ অন্তর্ভুক্ত করে রিজার্ভ ৭ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার বাড়িয়ে বলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।এবার ঋণ নিয়ে আলোচনা করতে এসে আইএমএফ কর্মকর্তারা বেশ জোরালোভাবেই এ বিষয়টি তুলে ধরে ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে এক ধরনের শর্ত হিসেবেই যুক্ত করে দিয়েছেন। বাংলাদেশ ব্যাংক এতে সম্মত হয়েছে বলে জানা গেছে। ফলে এখন থেকে আইএমএফের কাছে তথ্য পাঠানোর সময় প্রকৃত রিজার্ভের তথ্য পাঠানো হবে।এক বছর আগেও দেশে রিজার্ভ ছিল ৪ হাজার ৮০০ কোটি ডলারের (৪৮ বিলিয়ন) বেশি। আমদানি খরচ বাড়ায় যা এখন কমে হয়েছে ৩ হাজার ৫৮৫ কোটি (৩৫.৮৫ বিলিয়ন) ডলার। রিজার্ভ থেকে ৭ বিলিয়ন দিয়ে গঠন করা হয়েছে রপ্তানিকারকদের জন্য রপ্তানি উন্নয়ন তহবিল (ইডিএফ)।

আবার রিজার্ভের অর্থ দিয়ে গঠন করা হয়েছে লং টার্ম ফান্ড (এলটিএফ) ও গ্রিন ট্রান্সফরমেশন ফান্ড (জিটিএফ)। বাংলাদেশ বিমানকে উড়োজাহাজ কিনতে সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে রিজার্ভ থেকে ঋণ দেয়া হয়েছে। আবার পায়রা বন্দরের রাবনাবাদ চ্যানেলের খনন কর্মসূচিতেও রিজার্ভ থেকে অর্থ দেয়া হয়েছে। শ্রীলঙ্কাকে ২০ কোটি ডলার ঋণ দেয়া হয়েছে। এসব খাতে সব মিলিয়ে ব্যবহৃত হয়েছে ৮ বিলিয়ন ডলার।আইএমএফ বলছে, এসব বিনিয়োগকে বাদ দিয়ে রিজার্ভের প্রকৃত হিসাব করতে হবে। কারণ রিজার্ভের এসব অর্থ চাইলেই ফেরত পাওয়া যাবে না। জরুরি প্রয়োজনে ব্যবহার করা যাবে না। আইএমএফের শর্ত মানলে বর্তমানে রিজার্ভ কমে হয় ২৭ বিলিয়ন ডলারের কিছু বেশি। আর চলতি নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) ১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার আমদানি বিল পরিশোধের পর তা নেমে আসবে ২৫ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলারে। সেপ্টেম্বরে প্রায় ৭ বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি হয়েছে। সেই হিসাবে এই রিজার্ভ দিয়ে তিন মাসের কিছু বেশি সময়ের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব।আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী একটি দেশের কমপক্ষে তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সমপরিমাণ রিজার্ভ থাকতে হয়। সে বিবেচনায় বেশ অস্বস্তিতে আছে বাংলাদেশ।

তবে আশার কথা হচ্ছে, ডিসেম্বরের মধ্যে আইএমএফের ঋণের সাড়ে ৪ বিলিয়ন ডলার ঋণের প্রথম কিস্তির দেড় বিলিয়ন ডলার পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ ঋণটা পাওয়া গেলে সংকট কিছুটা হলেও কেটে যাবে।এদিকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে আইএমএফের প্রতিনিধি দল মুদ্রানীতির কাঠামো পরিবর্তন করতে বলেছে। রিজার্ভ মানির ওপর সীমা আরোপ ও সুদহারের সীমা তুলে দিতেও বলেছে তারা। পাশাপাশি বন্ডের বাজার উন্নয়ন ও সঞ্চয়পত্রের সংস্কার আনতে বলেছে সংস্থাটি।বাংলাদেশ ব্যাংক ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে ঋণের সুদহারের সীমা সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ নির্ধারণ করে দিয়েছে। আর আমানতের সুদের হার ৬ শতাংশ নির্ধারণ করে দিয়েছে। এর ফলে ব্যাংকগুলো সুদহার বাড়াতে পারছে না, আমানতে বেশি সুদ দিতে পারছে না। এমন পরিস্থিতিতে উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে ব্যাংকের সুদের ওপর নির্ভরশীল ব্যক্তিরা পড়েছেন চরম বিপাকে। এতে কমছে ব্যাংকের আমানতও।আইএমএফ বাংলাদেশ ব্যাংককে বছরে দুবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করার পরামর্শ দিয়েছে। পরে বছরে চারবার ঘোষণা করতে বলেছে।

এছাড়া প্রতিনিধি দলটি মুদ্রার ভাসমান বিনিময় হারের ওপর জোর দেয়। তারা প্রবাসী আয়ের ওপর আড়াই শতাংশ প্রণোদনা তুলে দিয়ে ডলারের দাম আরও বাড়ানোর পরামর্শ দেয়। এতে প্রবাসী আয় বাড়বে বলে মনে করে সংস্থাটি। পাশাপাশি বর্তমানে যে পদ্ধতিতে ডলারের দাম নির্দিষ্ট করা হয়েছে, তা স্থায়ী করা যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে তারা।বাংলাদেশ ব্যাংকের পরামর্শে এখন ব্যাংকগুলো জোটবদ্ধ হয়ে প্রবাসী আয়ে ডলারের সর্বোচ্চ দাম দিচ্ছে ১০৭ টাকা। আর রপ্তানি আয় নগদায়ন করছে ৯৯ টাকা ৫০ পয়সা দরে।কঠিন এই সময়ে আইএমএফের ঋণ পাওয়া গেলে অর্থনীতিতে যে চাপ সৃষ্টি হয়েছে, তা সামাল দেয়া যাবে বলে মনে করছেন অর্থনীতির গবেষক বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক এবং দীর্ঘদিন আইএমএফের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করে আসা আহসান এইচ মনসুর। তিনি বলেন, ‘আইএমএফ যেসব কথা বলছে বা যেসব শর্ত দিচ্ছে তার কোনোটিই কিন্তু নতুন নয়। বর্তমান পরিস্থিতিতে অর্থনীতির চাপ সামাল দিতে আইএমএফের ঋণটি খুবই জরুরি। তাই পরামর্শগুলোকে শর্ত হিসেবে ধরে নিয়েও যদি ঋণটা দ্রুত পাওয়া যায়, সেটিই মঙ্গল হবে বলে আমি মনে করি।

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *